Home / সম্পাদকীয় / আবার সমাগত ঘৃণ্য ও নৃশংসতম হত্যাকান্ডের কালিমালিপ্ত বেদনাবিধুর শোকের দিন ।।

আবার সমাগত ঘৃণ্য ও নৃশংসতম হত্যাকান্ডের কালিমালিপ্ত বেদনাবিধুর শোকের দিন ।।

অনলাইন ডেস্ক: আবার সমাগত ঘৃণ্য ও নৃশংসতম হত্যাকান্ডের কালিমালিপ্ত বেদনাবিধুর শোকের দিন।বাঙালি হারিয়েছে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপিতা ও বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পঁচাত্তরের আগস্টে সুবহে সাদিকের সময়।সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে বুলেটে ঝাঁজরা করে দিয়েছিল ঘাতকরা সেই ভোরে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে নিজ বাসভবনে।তাইতো এই আগস্ট শোকার্ত বাণী পাঠের মাস।সেই শোকাবহ আগস্টের প্রথম দিন আজ।এই আগস্টেই কোনো না কোনো বেদনাবিধুর ঘটনা ঘটেছে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পর থেকে।ষড়যন্ত্রকারীরা ষড়যন্ত্রের ফাঁদ পাতে যেন আগস্ট মাস ঘিরেই।

জাতির জনকের কন্যা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা চালিয়ে হত্যাচেষ্টা হয়েছিল।সাবেক রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমানের সহধর্মিণী, আওয়ামী লীগের সেসময়ের মহিলাবিষয়ক সম্পাদিকা আইভি রহমানসহ ২৪ জন নিহত এবং পাঁচ শতাধিক নেতাকর্মী আহত হন এই ঘটনায় ভাগ্যক্রমে সেদিন তিনি বেঁচে গেলেও।ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি পঁচাত্তরের পনেরোই আগস্ট কালরাতে,তাদের হাতে একে একে প্রাণ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেসা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর সন্তান শেখ কামাল, শেখ জামাল, শিশু শেখ রাসেলসহ পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজি জামাল। পৃথিবীর এই ঘৃণ্যতম হত্যাকান্ড থেকে বাঁচতে পারেননি বঙ্গবন্ধুর সহোদর শেখ নাসের, ভগ্নিপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাত, ভাগ্নে শেখ ফজলুল হক মনি, তার সহধর্মিণী আরজু মনি ও কর্নেল জামিলসহ পরিবারের ১৬ জন সদস্য ও আত্মীয়স্বজন।

গোটা বিশ্বে নেমে আসে শোকের ছায়া এবং ছড়িয়ে পড়ে ঘৃণার বিষবাষ্প-সেনাবাহিনীর কিছুসংখ্যক বিপৎগামী সদস্য সপরিবারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর।মুজিবকে হত্যার পর বাঙালিদের আর বিশ্বাস করা যায় না-বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর নোবেলজয়ী পশ্চিম জার্মানির নেতা উইলি ব্রানডিট।হত্যা করতে পারে যারা শেখ মুজিবকে,যেকোনো জঘন্য কাজ করতে পারে তারা।বাঙালিদের ‘বিশ্বাসঘাতক’ হিসেবে বর্ণনা করে ভারত বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক ও বিশিষ্ট সাহিত্যিক নীরদ সি চৌধুরী বলেছেন,বিশ্বের মানুষের কাছে নিজেদের আত্মঘাতী চরিত্রই তুলে ধরেছে বঙ্গবন্ধুর ঘাতকরা বাঙালি জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা শেখ মুজিবকে হত্যার মধ্য দিয়ে।উল্লেখ করা হয় দ্য টাইমস অব লন্ডন-এর ১৯৭৫ সালের ১৬ আগস্ট সংখ্যায়,সবকিছু সত্ত্বেও বঙ্গবন্ধুকে সব সময় স্মরণ করা হবে।বাংলাদেশের বাস্তব কোনো অস্তিত্ব নেই তাকে ছাড়া।

লন্ডন থেকে প্রকাশিত ডেইলি টেলিগ্রাফ পত্রিকায় একই দিন বলা হয়েছে,শেখ মুজিবের জঘন্য হত্যাকান্ডকে অপূরণীয় ক্ষতি হিসেবে বিবেচনা করবে বাংলাদেশের লাখ লাখ লোক।আওয়ামী লীগসহ সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর মাসব্যাপী কর্মসূচি প্রতিবারের মতো এবারও শুরু হচ্ছে।এই মাসে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন।আজ রাত ১২টা ১ মিনিটে আলোর মিছিলের মধ্য দিয়ে কর্মসূচি শুরু করবে স্বেচ্ছাসেবক লীগ।সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক পংকজ দেবনাথ এমপি জানান,মিছিলটি ধানমন্ডি ৩২নং সড়ক ধরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর অভিমুখে যাত্রা করবে।আজ সকালে কৃষক লীগের উদ্যোগে হবে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি।এই কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বেলা ৩টায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর প্রাঙ্গণে।এই মাসের অন্য কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে বঙ্গমাতা বেগম শেখ ফজিলতুন নেসা মুজিব, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় ছেলে শেখ কামালের জন্মদিন পালন, দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলা ১৭ আগস্ট এবং ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা দিবস স্মরণ ২১ আগস্ট এবং মৃত্যুবাষিকী পালন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের।

(বি:দ্র: ফাইল ছবি-তথ্য সংগ্রহকরা)

About admin

Check Also

ঈদ মুবারক ।।

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু…পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে আমাদের সকল লেখক-পাঠক,সংবাদকর্মী,বিজ্ঞাপনদাতা ও শুভানুধ্যায়ীদের আন্তরিক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *