Home / বিবিধ / নিজের ৮ বছরের মেয়ের মুখে বিষ তুলে দিয়ে নিজেও বিষ পান করেন এক মা।।

নিজের ৮ বছরের মেয়ের মুখে বিষ তুলে দিয়ে নিজেও বিষ পান করেন এক মা।।

অনলাইন ডেস্ক: নিজের ৮ বছরের মেয়ের মুখে এই ওষুধ খেলে শক্তি বাড়বে একথা বলে বিষ তুলে দিয়ে নিজেও বিষ পান করেন এক মা।এই ঘটনা ঘটে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার ডাঙ্গী ইউনিয়নের ভবুকদিয়া গ্রামে।মুমূর্ষ অবস্থায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ (ফমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে ওই মা ও মেয়েকে।চিকিৎসক জানিয়েছেন আশঙ্কামুক্ত না হওয়ায় তাদের ২৪ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

তথ্যমতে-স্থানীয়রা জানায়,ভাগ্য বিড়ম্বনার শিকার ওই মায়ের নাম মৌসুমী আজাদ (২৬)।তিনি ওই গ্রামের জনৈক লিটন মোল্যার স্ত্রী। তাদের মেয়ের নাম ফায়জা ইসলাম।শিশুটি  ২য় শ্রেণীর শিক্ষার্থী স্থানীয় একটি কেজি স্কুলে।শিশুর স্বজনেরা জানান,একজন ব্যবসায়ী মৌসুমী আজাদের স্বামী লিটন মোল্যা।তিনি ভবুকদিয়া বাসস্ট্যান্ডে হার্ডওয়ারের দোকান করেন।স্বামী-স্ত্রীর মাঝে মনোমালিন্য চলছিল সাংসারিক বিষয় নিয়ে।তারা জানান,এই ওষুধ শরীরে শক্তি বাড়বে,তার মা মৌসুমী একথা বলে ফায়জাকে বিষ পান করতে দেয়।তিনি নিজেও ওই বিষ পান করেন।এরপর তারা দুজন অসুস্থ হয়ে পড়লে স্বজনরা তাদেরকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।এসময় নির্বাক ছিলো অসুস্থ শিশু ফায়জা।স্বজনরা তার সাথে কথা বলতে চেষ্টা করলেও কোন জবাব দেয় না সে।

জানাযায়,লিটন মোল্যার ভাই টিটো মোল্যা জানান,মোটামুটি সুস্থ রয়েছে শিশু ফায়জা।ওর মায়ের অবস্থা আশঙ্কাজনক।সংসারে টুকিটাকি ঝগড়া হতে পারে।সেই কারণে ভাবী এমন কাজ করতে পারে ভাবতে পারিনি আমি।শিশুটি জানায়,তার মা তাকে বলেছে বাজার থেকে এই ওষুধটি পাঠিয়েছে তোমার বাবা। এটা খেলে অনেক শক্তি হয়।মা ও খেয়েছে এর পর।শিশু ওয়ার্ডের এক ইন্টার্ন চিকিৎসক জানান, স্বজনরা বলতে পারছেন না কতোটুকু পরিমাণ বিষ ওই শিশু ও তার মা সেবন করেছেন।শিশু ফায়জাকে আমরা ২৪ ঘণ্টার পর্যবেক্ষণে রেখেছি।মহিলা ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে তার মাকে।নগরকান্দা থানার ওসি শেখ সোহেল রানা জানান,এই বিষয়ে এখনও কেউ অভিযোগ করেনি।আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে অভিযোগ পেলে।

About admin

Check Also

আগামীকাল বুধবার থেকে কঠোর লকডাউনে পণ্য পরিবহনে চালু করা হবে বিশেষ ট্রেন।।

অনলাইন ডেস্ক :    রেলপথ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন জানিয়েছেন,করোনাকালীন সময়ে পণ্যবাহী ট্রেনের পাশাপাশি কৃষিজাত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *