Home / চট্টগ্রাম / প্রতিপক্ষের গুলিতে নিহত,চট্টগ্রামে গণধর্ষণ মামলার আসামি…

প্রতিপক্ষের গুলিতে নিহত,চট্টগ্রামে গণধর্ষণ মামলার আসামি…

অনলাইন ডেস্ক: রবিবার সকালে পুলিশ এক ব্যক্তির গুলিবিদ্ধ মৃতদেহ উদ্ধার করেছে চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার একটি পাহাড়ের উপর থেকে।কোরিয়ান ইপিজেডের একটি জুতা কারখানার এক নারী কর্মীকে গণধর্ষণ ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী নিহত ওই ব্যক্তি এবং তথ্যমতে-পুলিশ সূত্র জানিয়েছে,এই মামলার প্রধান আসামি আবদুন নুরের (২৫)।তথ্যমতে,জানাযায়-দুলাল মাহমুদ,আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেছেন,উপজেলার বারখাইন ইউনিয়নে চায়না ইকোনমিক জোনের পাশে হাজীগাঁও পাহাড় থেকে মৃতদেহটি উদ্ধার করা হয় রবিবার সকালে।আনোয়ারা উপজেলার বৈরাগ ইউনিয়নে নিহত আবদুন নুরের বাড়ি।গণধর্ষণ,ছিনতাই,ডাকাতিসহ মোট ৪টি মামলা রয়েছে তার নামে।কোরিয়ান ইপিজেডের এক নারীকর্মীকে গণধর্ষণ ঘটনার মূলহোতা তিনি ও সদস্য একটি ডাকাত চক্রের।ধারণা করা হচ্ছে,ডাকাত চক্রের নিজেদের মধ্যে বিবাদের সূত্র ধরে গুলিবিনিময়ের ঘটনায় তিনি নিহত হয়েছে।লাশ ও একটি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়,সকালে স্থানীয় কৃষকরা লাশটি দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দিলে।গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি আবদুন নুরের বলে সনাক্ত করা হয় লাশটি উদ্ধারের পর।

তথ্যমতে,জানাযায়-দুলাল মাহমুদ,আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেছেন,তার বিরুদ্ধে মামলা হয়,গত জানুয়ারি মাসে এবং পরে রমজান মাসে দুটি ছিনতাইয়ের ঘটনায়।তিনি ২০১৮ সালে ডাকাতির অভিযোগে দায়ের হওয়া একটি মামলার আসামি।ইপিজেড নারী কর্মীকে ধর্ষণের জন্য ওঁৎ পেতে ছিল আবদুন নুরের নেতৃত্বে ৪ জনের ডাকাত  চক্রটি ঘটনার দিন।তথ্যমতে,জানাযায়,গত ৩ জুলাই কারখানায় কাজ শেষে রাত ৮টার দিকে চন্দনাইশ উপজেলার বাড়িতে যাওয়ার জন্য রাস্তায় নামতেই দুর্বৃত্তদের কবলে পড়ে গণধর্ষণের শিকার হয় ১৫ বছর বয়সী এই নারী কর্মী।ধর্ষণকারীরা তাকে মুমূর্ষূ অবস্থায় আনোয়ারা থানার চৌমুহনীর কাছে কালারমার দিঘী এলাকায় রাস্তার অন্ধকারচ্ছন্ন এলাকায় ফেলে চলে যায়।তার কাছ থেকে মোবাইল নম্বর নিয়ে পরিবারের সদস্যদের খবর দেয়স্থানীয় জনগণ তাকে দেখতে পেয়ে।ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে নিয়ে যান ভাইসহ পরিবারের কয়েকজন সদস্য।চোখ বেঁধে ৪ ব্যক্তি তাকে ধর্ষণ করেছে সে জানায়।গত ৪ জুলাই রাতে আনোয়ারা থানায় অজ্ঞাতনামা ৪ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন,এই ঘটনার শিকার কিশোরীর ভাই বাদি হয়ে।গত ৫ জুলাই রাতে গ্রেফতার করা হয়,মামলার ২ আসামি কিশোরীকে বহনকারী অটোরিকশার চালক মামুন (২০) এবং যাত্রী হেলাল উদ্দিনকে (৩০)।অপরাধ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে আদালতে ১৬৪ ধারায়  তারা।

(বি:দ্র: ফাইল ছবি -তথ্য সংগ্রহকরা)

About admin

Check Also

বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ বুধবার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে কক্সবাজারে।।

অনলাইন ডেস্ক :     বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ বুধবার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে কক্সবাজারে। বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ নেতারা দীর্ঘ প্রায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *