Home / জাতীয় / প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-এখন উন্নয়ন বিস্ময় বাংলাদেশ…

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-এখন উন্নয়ন বিস্ময় বাংলাদেশ…

অনলাইন ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেছেন,বাংলাদেশ আজ উন্নয়ন বিস্ময় হয়ে উঠেছে আশির দশকের তলাবিহীন ঝুড়ির অপবাদ কাটিয়ে।নতুন নতুন সম্ভাবনার দ্বার প্রতিনিয়ত উন্মোচিত হচ্ছে।উন্নয়ন,অগ্রগতি আর সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে চলেছে দেশ,দেশি-বিদেশি নানা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে।বাংলাদেশের এই উন্নয়ন এবং অদম্য অগ্রযাত্রা সম্ভব হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকারের জনকল্যাণমূলক অর্থনৈতিক উন্নয়ন উদ্যোগ বাস্তবায়নের কারণে।বাংলাদেশ হবে উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তুলনীয় এক শান্তিপূর্ণ,সমৃদ্ধ,সুখী এবং উন্নত জনপদ রূপকল্প-২০৪১ বাস্তবায়ন করে ২০৪১ সালের মধ্যে।তিনি এই কথা বলেন-জাতীয় সংসদ অধিবেশনে টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নোত্তরে সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মাহফুজুর রহমানের প্রশ্নের লিখিত জবাবে গতকাল বুধবার।স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এই সময় অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন,সাবেক আইজিপি সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদের প্রশ্নের জবাবে,দেশের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা আছে,মিয়ানমার থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের দ্রুত ফেরত পাঠাতে না পারলে।অনেক অভাব অভিযোগ রয়েছে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা অধিবাসীদের।সরকার কূটনৈতিক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেতাদের প্রত্যাবাসনে। বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকরা স্বেচ্ছায় ফেরত যেতে রাজি হয়নি,মিয়ানমারের অভ্যন্তরে সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টি না হওয়ায়।শুরু করা সম্ভব হয়নি ফলে ২৫ নভেম্বর প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া।তিনটি দ্বিপাক্ষিক চুক্তি সম্পাদন করেছি এই ব্যাপারে মিয়ানমারের সঙ্গে আমরা।তথাপিও মিয়ানমার সরকার নানা তালবাহানা করে এই প্রক্রিয়া দীর্ঘায়িত করছে,চুক্তিতে সুস্পষ্টভাবে বর্ণিত আছে দুই বছরে মধ্যে এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে।অব্যাহতভাবে আমাদের সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে বিশ্ব জনমত ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়।এই বিষয়ে মানবাধিকার কমিশনে একটি রিপোর্ট প্রেরণ করেছে জাতিসংঘ।তাদেরকে এই বিষয়ে কাজ করতে দিচ্ছে না মিয়ানমার সরকার।আমরা দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক দুটি পথই খোলা রেখেছি মিয়ানমারের অসযোগিতা সত্ত্বেও।

 

এমন পর্যায়ে উন্নীত করতে সক্ষম হয়েছি আমাদের অর্থনৈতিক সক্ষমতা,নিজেদের অর্থায়নে বাস্তবায়ন করছি পদ্মা সেতুর মত বৃহত্ প্রকল্প।আমরা ১০টি মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন করছি পদ্মা সেতুসহ।বাংলাদেশ একটি উন্নত দেশে পরিণত হবে ২০৪১ সালে ১৬ হাজার মার্কিন ডলারের বেশি মাথাপিছু আয় নিয়ে।’দারিদ্র্য’হবে সুদূর অতীতের কোনো ঘটনা সোনার বাংলায়।প্রধানমন্ত্রী বলেন-বিএনপি-জামায়াত জোটের সমালোচনা করে,আওয়ামী লীগ সরকারের করা এই অগ্রযাত্রা থমকে দাঁড়ায় একবিংশ শতাব্দির শুরুতেই।আবারও দুর্নীতির চক্রে নিপতিত হয় দেশ ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় আসলে।তারেক জিয়া চালাতে থাকে লুটপাট হাওয়া ভবনের নামে।বাংলাদেশ পিছিয়ে পড়ে অর্থনৈতিক উন্নয়ন সূচকের প্রায় সবগুলোতেই।২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট দুই তৃতীয়াংশের অধিক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গঠন করলে আমরা আবারও কাজ করার জন্য মনোনিবেশ করি দেশ ও জনগণের কল্যাণে।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন-সরকার দলীয় অপর সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের লিখিত জবাবে,আগামী পাঁচ বছরে দেড় কোটি কর্মসংস্থানের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছেআমাদের সরকার।বর্তমান সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে,বেকারত্ব দূর করে কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে তরুণ প্রজন্মকে মানব সম্পদে পরিণত করার লক্ষ্যে সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা (২০১৬-২০)-এর কৌশল ও লক্ষ্যমাত্রার ভিত্তিতে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন,আশা করা যায় প্রবাসে শ্রমিকদের কর্মসংস্থানের বর্তমান ধারা অপরিবর্তিত থাকবে।৮ লাখ ৮০ হাজার ২০১৭-১৮ অর্থবছরে বিদেশে শ্রমিক পাঠানো হয়েছে।প্রধানমন্ত্রী বলেন-বিকল্প ধারা বাংলাদেশের মহাসচিব আবদুল মান্নানের প্রশ্নের জবাবে,বিদ্যুত্ অপরিহার্য দারিদ্র্য বিমোচন এবং আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে।বিদ্যুত্ ২০০৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে গুরুত্বপূর্ণ খাত ছিল।বর্তমানে বিদ্যুতের উত্পাদন ক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়ে নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও ক্যাপটিভসহ ২১ হাজার ৬২৯ মেগাওয়াটে উন্নীত হয়েছে।বর্তমানে সারাদেশে বিদ্যুতের কোনো ঘাটতি নেই চাহিদার তুলনায় উত্পাদন ক্ষমতা বেশি থাকায়।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন-অসীম কুমার উকিলের প্রশ্নের লিখিত জবাবে,আওয়ামী লীগ সরকার সর্বপ্রথম ১৯৯৭-৯৮ অর্থ বছরে বয়স্ক ভাতা চালু করে,বয়স্ক জনগোষ্ঠী বিশেষ করে বয়স্ক মহিলাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন,সামাজিক নিরাপত্তা বিধান,পরিবার ও সমাজে তাদের মর্যাদা বৃদ্ধি ও চিকিত্সার লক্ষ্যে।বয়স্ক ভাতা বৃদ্ধি করে ৪৪ লাখে উন্নীত করা হবে আগামী অর্থ-বছরে।পর্যায়ক্রমে আরো বৃদ্ধি করা হবে বয়স্ক ভাতা সহায়তার আওতা সম্প্রসারণ ও ভাতার পরিমাণ।

(বি:দ্র: ফাইল ছবি-তথ্য  সংগ্রহকরা)

About admin

Check Also

উপনির্বাচন-ভোটগ্রহণ চলছে ঢাকা-১৮ ও সিরাজগঞ্জ-১ আসনে।।

অনলাইন ডেস্ক :     আজ বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে ঢাকা-১৮ ও সিরাজগঞ্জ-১ আসনে উপনির্বাচনে।ভোটগ্রহণ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *