Home / খেলাধুলা / ভারতকে ৫ রানে হারিয়ে বাংলাদেশের সিরিজ জয়।।

ভারতকে ৫ রানে হারিয়ে বাংলাদেশের সিরিজ জয়।।

অনলাইন ডেস্ক :     ভারতের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ভারতকে ৫ রানে হারিয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখে ঘরের মাটিতে বাংলাদেশ সিরিজ নিজেদের করে নিলো।

বুধবার (৭ ডিসেম্বর) মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ টস জিতে প্রথমে ব্যাট করে মিরাজের সেঞ্চুরিতে ৭ উইকেট হারিয়ে ২৭১ রান সংগ্রহ করে। শেষ দিকে রোহিতের অনবদ্য ব্যাটিংয়ে জয়ের পথেই ছিল ভারত। শেষ বলে জয়ের জন্য ৬ রান প্রয়োজন ছিল ভারতের। তবে শেষ বলে এক রান দিয়ে মোস্তাফিজ বাংলাদেশের জয় নিশ্চিত করে। 

ভারত ২৭২ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায়। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে বিরাট কোহলিকে বোল্ড করে বাংলাদেশকে প্রথম সাফল্য এনে দেন পেসার এবাদত হোসেন। দলীয় ৭ রানে ৬ বলে মাত্র ৫ রান করে আউট হন কোহলি। এরপর দলীয় ১৩ রানে বাংলাদেশকে দ্বিতীয় সাফল্য এনে দেন মোস্তাফিজুর রহমান। দলীয় ১৩ রানে ওপেনার শিখর ধাওয়ানকে ফেরান তিনি। ধাওয়ান ১০ বলে ৮ রান করে সাজঘরে ফিরে যান।

ভারত শুরুতেই দুই উইকেট হারিয়ে কিছুটা বিপাকে পড়ে যায়। ধাওয়ানের বিদায়ের পর ক্রিজে আসেন ওয়াশিংটন সুন্দর। তাকে সঙ্গে নিয়ে ইনিংস শুরুর ধাক্কা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন ওয়ান ডাউনে নামা শ্রেয়াস আইয়ার। তবে ভারতের ইনিংসে তৃতীয় ধাক্কা দেন আগের ম্যাচে ৫ উইকেট পাওয়া সাকিব আল হাসান। ইনিংসের দশম ওভারের শেষ বলে ওয়াশিংটন সুন্দরকে ফেরান সাকিব। দলীয় ৩৯ রানে ১৯ বলে ১১ রান করে সাকিবের বলে লিটন দাসকে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান সুন্দর। সুন্দরের বিদায়ের পর ক্রিজে আসেন লোকেশ রাহুল। রাহুলকে সঙ্গে নিয়ে ইনিংস মেরামত করার চেষ্টা করেন আইয়ার। তবে দলীয় ৬৫ রানের মাথায় আবারও উইকেট হারায় ভারত। এবার বাংলাদেশকে সাফল্য এনে দেন মেহেদী মিরাজ। ২৪ বলে ১৪ রান করা লোকেশ রাহুলকে তিনি সাজঘরে ফেরান।

অক্ষর প্যাটেল ক্রিজে আসেন রাহুলের বিদায়ের পর । এক প্রান্তে উইকেট হারালেও অন্যপ্রান্তে সাবলীল ব্যাটিং করতে থাকে ওয়ান ডাউনে নামা শ্রেয়াস আইয়ার। নিজের সাবলীল ব্যাটিংয়ে তুলে নেন নিজের অর্ধশতক। অক্ষর প্যাটেলকে সঙ্গে নিয়ে শুরুর বিপর্যয় সামাল দেন তিনি। অক্ষর প্যাটেল ও আইয়ারের শক্ত জুটিতে ম্যাচে ফেরে ভারত। দুজন মিলে পঞ্চম উইকেট জুটিতে ১০১ বলে ১০৭ রানের জুটি গড়েন। দু’জন মিলে ভারতকে জয়ের স্বপ্ন দেখাতে থাকেন। তবে ইনিংসের ৩৫তম ওভারে এসে বাংলাদেশকে ব্রেক থ্রু এনে দেন মেহেদী মিরাজ। দলীয় ১৭২ রানে মেহেদীকে ছক্কা মারতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনে আফিফের হাতে ধরা পড়েন শ্রেয়াস আইয়ার। ১০২ বলে ৮২ রানের অসাধারণ ইনিংস খেলে আইয়ার সাজঘরে ফিরে যান। আইয়ারের বিদায়ের পর ক্রিজে আসেন শার্দুল ঠাকুর। তাকে সঙ্গে নিয়ে ব্যাটিং চালিয়ে যান প্যাটেল। ৫০ বল খেলে তুলে নেন নিজের অর্ধশতক। তবে অর্ধশতক করার পরেই সাজঘরে ফিরে যান অক্ষর প্যাটেল। দলীয় ১৮৯ রানে ৫৬ বলে ৫৬ রান করে আউট হন তিনি। এবাদতের বলে সাকিবের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তিনি। পর পর দুই উইকেট তুলে নিয়ে বাংলাদেশ ম্যাচে ফিরে।

দিপক চাহার ক্রিজে আসেন অক্ষর প্যাটেলের বিদায়ের পর। ইনিংসের ৪৩তম ওভারে বোলিংয়ে এসে আবারও বাংলাদেশকে সাফল্য এনে দেন সাকিব আল হাসান। বোলিংয়ে এসে শার্দুল ঠাকুরের উইকেট তুলে নেন সাকিব। সাকিবকে উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে এসে মারতে গিয়ে স্ট্যাম্পিং হন শার্দুল ঠাকুর। তার বিদায়ের পর চোট পাওয়া অধিনায়ক রোহিত শর্মা ক্রিজে আসেন। এরপর ইনিংসের ৫৬তম ওভারে বোলিংয়ে এসে নিজের তৃতীয় উইকেট তুলে নেন পেসার এবাদত। দলীয় ২১৩ রানে পুল করতে গিয়ে শান্তর হাতে ধরা পড়েন দিপক চাহার। ১৮ বলে ১১ রান করে আউট হন তিনি। এরপর ওভারের তৃতীয় ও পঞ্চম বলে এবাদতকে ছক্কা হাঁকান রোহিত শর্মা। শেষ বলে চার মেরে তিনি ওভার শেষ করেন।

মিরাজ ইনিংসের ৪৭তম ওভারে বোলিংয়ে আসেন। তবে ইনজুরির কারণে এক বলে করে ওভার শেষ না করেই মাঠ ছাড়েন তিনি। তার পরিবর্তে বল করতে আসেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। পাঁচ বল করে মাত্র ১ রান দেন মাহমুদুল্লাহ। জয়ের জন্য শেষ তিন ৩ ওভারে ৪০ রান প্রয়োজন হয় ভারতের। ইনিংসের ৪৮তম ওভারে বোলিংয়ে আসেন মোস্তাফিজুর রহমান। এই ওভার মেডেন করেন তিনি। ফলে শেষ দুই ওভারে জয়ের জন্য ভারতের ৪০ রান প্রয়োজন হয়। ইনিংসের ৪৯তম ওভারে বোলিংয়ে আসেন মাহমুদুল্লাহ। ওভারের প্রথম বলেই ছক্কা হাঁকান রোহিত। পরের বলে ওয়াইডের সঙ্গে বাই দুই রান নেয় ভারত। ওভারের দ্বিতীয় বলে ক্যাচ উঠলেও তা ছেড়ে দেন এবাদত। ওভারের তৃতীয় বলে আবারও ছক্কা হাঁকান রোহিত। ওভারের চতুর্থ বলে দুই রান নেন তিনি। ওভারের পঞ্চম বলে ক্যাচ উঠলে আবারও তা ছেড়ে দেন বিজয়। তবে শেষ বলে সিরাজকে মাহমুদুল্লাহ বোল্ড করেন।

ভারতের শেষ ওভারে জয়ের জন্য ২০ রান প্রয়োজন ছিল। শেষ ওভারে বোলিংয়ে আসেন মোস্তাফিজুর। প্রথম বল ডট দিয়ে দ্বিতীয় বলে চার মারেন রোহিত। ওভারের তৃতীয় বলে ফের চার মারেন রোহিত। শেষ তিন বলে ১২ রান প্রয়োজন ছিল ভারতের। ওভারের চতুর্থ বল ডট করেন মোস্তাফিজ। এরপর ওভারের পঞ্চম বলে ছক্কা হাঁকান রোহিত। শেষ বলে ছয় রান প্রয়োজন হয় ভারতের। তবে শেষ বলে মাত্র এক রান দিয়ে বাংলাদেশের জয় নিশ্চিত করে মোস্তাফিজ। শেষ পর্যন্ত ৫ রানের জয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখে বাংলাদেশ সিরিজ জিতে নেয়। রোহিত শর্মা ২৮ বলে ৫১ রান করে অপরাজিত থাকেন। আর বাংলাদেশের পক্ষে এবাদত হোসেন নেন সর্বোচ্চ ৩টি উইকেট। আর ২টি করে উইকেট নেন সাকিব ও মিরাজ।

ছবি: সংগৃহীত

About admin

Check Also

বিপিএল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে সিলেট স্ট্রাইকার্স।।

অনলাইন ডেস্ক :    বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সকে সিলেট স্ট্রাইকার্স ৭ উইকেটে হারিয়েছে। চট্টগ্রামের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *