Home / রাজশাহী / রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিনতাইকারীদের হামলায় গুরুতর আহত।।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিনতাইকারীদের হামলায় গুরুতর আহত।।

অনলাইন ডেস্ক:  রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী ফিরোজ আনাম গুরুতর আহত হয়েছেন ছিনতাইকারীদের হামলায়। এই ঘটনা ঘটে শুক্রবার রাত পৌনে ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের হবিবুর রহমান মাঠ সংলগ্ন স্টেডিয়ামের পাশে।এতে শিক্ষার্থীরা ক্ষোভে ফুসে উঠেছে।

ছিনতাইকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি,ফিরোজের চিকিৎসা ব্যয় বহন ও ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবিতে মানববন্ধন,বিক্ষোভ মিছিল ও মহাসড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালিত হয় শনিবার সকাল সকাল ১০টা থেকে।পৃথকভাবে এসব কর্মসূচি পালন করে-রাবি ছাত্রলীগ,বদরগঞ্জ উপজেলা ছাত্র সমিতি ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা।ছাত্রলীগ একাত্মতা প্রকাশ করে অংশ নেয় সাধারণ শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ কর্মসূচিতে।পরে আগামী ২৪ অক্টোবরের মধ্যে ক্যাম্পাসের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার,বহিরাগতদের প্রবেশ নিষেধ,ছিনতাইকারীদের শাস্তিসহ বেশ কয়েকটি দাবি জানিয়ে দুপুর আড়াইটার দিকে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন স্থগিত করেন।

জানা যায়,ফিরোজ বান্ধবীকে সঙ্গে নিয়ে স্টেডিয়াম মার্কেটে নোট ফটোকপি করতে যাচ্ছিলেন শুক্রবার সন্ধ্যায়।সেখানে কয়েকজন যুবক তাদের পথরোধ করে ফিরোজের বান্ধবীর হাতে থাকা ফোন ছিনিয়ে নিয়ে শহীদ হবিবুর রহমান মাঠের দিকে হাঁটতে শুরু করে।এসময় ফিরোজ ধাওয়া করলে তাকে হাতুড়ি দিয়ে বেদম প্রহার করে ছিনতাইকারীরা।এতে তার মাথা ফেটে যায়।তিনি বর্তমানে চিকিৎসাধীন রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ৮ নম্বর ওয়ার্ডে।রাত সাড়ে ১০টার দিকে ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে ছিনতাইকারীদের শাস্তির দাবিতে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ শুরু করে।এসময় রাবি প্রক্টর শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলতে গেলে তারা উত্তেজিত হয়ে পড়ে।একপর্যায়ে সহকারী প্রক্টর হুমায়ন কবীর আন্দোলনকারীদের সঙ্গে উচ্চবাচ্য করেন। এতে এসআরকে রাজ নামের এক ছাত্রলীগ কর্মী ও ইতিহাস বিভাগের চতুর্থ বর্ষের কিশোর কুমার নামে দুইজন ওই সহকারী প্রক্টরকে লাঞ্ছিত করেন শারীরিকভাবে।

রাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনুর অনুসারী রাজ।কিশোর কুমারকে ঘটনাস্থল থেকে ডিবি তুলে নিয়ে যায় লাঞ্ছিতের ঘটনায়।পরে শিক্ষার্থীরা কিশোরকে না পেলে রাতভর আন্দোলনের ঘোষণা দিলে প্রায় আধা ঘণ্টা পর কিশোরকে ছেড়ে দেওয়া হয়।শিক্ষার্থীরা আন্দোলন স্থগিত করে এর প্রায় ঘণ্টা খানেক পর।রাজশাহী মহানগরীর মতিহার থানায় রাতে ভুক্তভোগী ফিরোজ আনাম বাদী হয়ে চারজনকে আসামি করে হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করেন।পুলিশ এই ঘটনায় গভীর রাতে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তিনজনকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন,নগরীর তালাইমারী এলাকার জাহিদ হোসেনের ছেলে রুবেল হোসেন,শিরোইল এলাকার রাকিব আলীর ছেলে রিফাত হোসেন রাকেশ এবং মীর্জাপুর এলাকার খোরশেদের ছেলে পারভেজ।

প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন,পুলিশ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে।আশা করছি দ্রুতই বাকিদের গ্রেফতার করে শাস্তির আওতায় আনা হবে।শিক্ষার্থীরা যেসব দাবি জানিয়েছে সেগুলো অবশ্যই আমরা দ্রুততম সময়ের মধ্যেচেষ্টা করব বাস্তবায়নের।মতিহার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হাফিজুর রহমান বলেন,এই ঘটনায় গ্রেফতারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বাকি আসামিদের।

বি: দ্র: ছবি সংগ্রহকরা

About admin

Check Also

বাড়তি নিরাপত্তার স্বার্থে এবার এলএমজি চেকপোস্ট স্থাপন করা হয়েছে রাজশাহীতে।।

মোঃ সাইফুল ইসলাম রায়হান-রাজশাহী। অনলাইন ডেস্ক :    এলএমজি চেকপোস্ট স্থাপন করা হয়েছে এবার রাজশাহী মেট্রোপলিটন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *