Home / আন্তর্জাতিক / সন্দেহভাজন ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ কুকুরকে দিয়ে খাইয়েছে মেক্সিকোর একটি গ্যাং।।

সন্দেহভাজন ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ কুকুরকে দিয়ে খাইয়েছে মেক্সিকোর একটি গ্যাং।।

অনলাইন ডেস্ক:  মেক্সিকোর একটি গ্যাং সন্দেহভাজন ধর্ষককে ধরে নগ্ন করার পর পিট বুল জাতের পোষা কুকুরকে দিয়ে ওই ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ খাইয়েছে।ওই গ্যাংয়ের সদস্যরা রাজধানী মেক্সিকো সিটিতে এক নারীকে ধর্ষণের ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে তাকে ধরে নিয়ে যায়।পরে তারা ৩০ বছর বয়সী ওই ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ জনসম্মুখে কুকুরকে দিয়ে খাওয়ায়।

সংঘবদ্ধ ওই গ্যাংয়ের প্রকাশিত একটি ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়,সন্দেহভাজন ওই ধর্ষককে ধরে হ্যান্ডকাফ পরিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন গ্যাংয়ের সদস্যরা।পরে পাঁচজনের একটি দল তাকে রাস্তার পাশে মাটিতে ফেলে মারধরের পর নগ্ন করেন।তার দুই পা দুই দিক থেকে টেনে ধরা হয়।এই সময় একটি সাদা রঙয়ের উন্নত জাতের পোষ্য পিট বুল কুকুর ওই ধর্ষকের গোপনাঙ্গে হামলে পড়ে।এই কুকুর ধর্ষকের পুরুষাঙ্গ ও অন্ডকোষ ছিঁড়ে খেয়ে ফেলে।এই সময় ওই যুবককে স্প্যানিশ ভাষায় চিৎকার করে কুকুরের হামলা থেকে বাঁচানোর আকুতি করতে দেখা যায়।ভিডিওতে দেখা যায়,ওই যুবক চিৎকার করে বলছেন,প্লিজ আমাকে ছেড়ে দাও,আমাকে ছেড়ে দাও।ওই গ্যাংয়ের এক সদস্য তার মুখে কাপড় ঢুকিয়ে দেয়-এই যুবকের কান্নাকাটি থামানোর জন্য।

বাদামি রঙয়ের অপর একটি পিট বুল কুকুরকে সে সময় পাশে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।গত মাসের এই ঘটনার ভিডিও প্রকাশের পর ওই গ্যাংয়ের সদস্যরা বলেছেন,অন্য ধর্ষকদের সতর্কতা হিসেবে এই শাস্তির ভিডিওটি প্রকাশ করা হলো।তবে  জানা যায়নি নির্মম এই শাস্তির পর ওই ব্যক্তি বেঁচে আছেন কিনা। স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে,অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে মেক্সিকোতে সংঘবদ্ধ অপরাধী সংগঠনগুলোর নিষ্ঠুরতার মাত্রা।সংগঠনগুলো অপরাধীদের ধরে এনে এই ধরনের শাস্তিদানের ঘটনাও বারবার ঘটাচ্ছে।

দেশটির রাজধানীর রাস্তায় হাজার হাজার নারী যৌন হয়রানি ও সহিংসতার বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামেন গত মাসে।গত ৩ আগস্ট মেক্সিকো সিটির আজক্যাপোতজ্যালকো জেলায় ১৭ বছর বয়সী এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে দেশটির পুলিশের চার সদস্যের বিরুদ্ধে।দেশটির নারীরা এই আন্দোলন শুরু করেন আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যদের হাতে ধর্ষণের এই ঘটনা সংঘটিত হওয়ার পর।এই সময় বিক্ষোভ কারীদের হাতে “সব ধরনের সহিংসতার বিরুদ্ধে সব নারী” এবং “যদি তুমি নারীদের লঙ্ঘন করো, তাহলে আমরাও তোমার আইন লঙ্ঘন করবো” প্ল্যাকার্ড দেখা যায়।

প্রত্যেক দিন গড়ে অন্তত ১০জন নারী খুন হন মেক্সিকোতে।এছাড়া এই ধরনের আরো অনেক হত্যাকাণ্ডের ও অপরাধের খবর অনেক সময় অপ্রকাশিত থেকে যায়।স্থানীয় মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলো বলছে,পুলিশের ওপর মেক্সিকোর মানুষের আস্থা একেবারেই কম।যে কারণে অনেক নারী ধর্ষণের শিকার হলেও তারা পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন না।ব্রিটিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ানকে ইন্দ্রিরা স্যান্দোভাল নামের এক নারী বলেছেন,প্রত্যেকদিন মেয়েরা নিখোঁজ হচ্ছে,নারীরা নিখোঁজ হচ্ছেন,নারীরা সহিংসতার শিকার ও ধর্ষিত হচ্ছেন।আমরা এর একটি রাজনৈতিক সাড়া চাই।বিশ্বে মানুষ সবচেয়ে বেশি হত্যাকাণ্ডের শিকার হয় মেক্সিকোতে।দেশটিতে অন্তত ১৭ হাজার মানুষ খুন হয়েছেন চলতি বছরের প্রথমার্ধে,যা দেশটির ইতিহাসের সর্বোচ্চ।

About admin

Check Also

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনের বিরুদ্ধে শিগগিরই ‘যুদ্ধ’ ঘোষণা করবেন।।

অনলাইন ডেস্ক :    ইউক্রেনের বিরুদ্ধে আগামী ৯ মে আনুষ্ঠানিকভাবে যুদ্ধ ঘোষণা করতে পারেন রুশ প্রেসিডেন্ট …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *